যে কোনো সময় লেখা পোস্ট করা যায় । লিঙ্ক - https://webtostory.com/to-post-the-text/

গাঁয়ের মানুষজন তখনও মোবাইল এবং এর ব্যবহার সম্মন্ধে অজ্ঞ। তারা নেড়েচেড়ে দেখে আর অবাক হয়।

চাচী মোবাইল পেয়ে খুশীর আতিশয্যে গাঁয়ের প্রায় প্রতিটি বাড়ী গিয়ে সেট দেখিয়ে বলেন "ইডা আমার রবি পাঠাইছে আর এই মুবালদে তারে ফোন দিতি কইছে"। বলে রাখা ভালো

Story and Article


 অণুগল্প- ১

শিম বিড়ম্বনা
কলমেঃ প্রবক্তা সাধু।

২০০২ সালের গোড়ার দিকের ঘটনা। আমার পাড়াতো চাচাতো ভাই রবিউল সৌদি থেকে তার মা'র জন্য একটা নোকিয়া ৩৩১০ মডেলের মোবাইল সেট পাঠিয়েছে। চিঠিতে লিখে দিয়েছে, একটা সিম কিনে সেটে পুরে চাচী যেনো তাকে প্রথমে ফোন দেয়।
সে সময় মোবাইল ফোনের তেমন বিস্তার বা প্রসার ঘটেনি। শুধু কিছু ধনীক শ্রেণী ব্যবহার করতেন। প্রিপেইড কানেকশনের জন্য প্রতি একুশ দিনে একবার কমপক্ষে তিনশত টাকার রিচার্জ এবং প্রতি বছর এগারোশত টাকা বার্ষিক ফী দেওয়া বাধ্যতামূলক ছিলো। তাছাড়া দেশের মধ্যে মোবাইল টু মোবাইল কলচার্জ ছিলো প্রতি মিনিট প্রায় আট টাকা। আবার সিমও ততটা সহজলভ্য ছিলোনা। দশ হাজার টাকার কমে ভালো কোনো হ্যাণ্ডসেটও পাওয়া যেতো না। আমার হাতে মোবাইল ফোন দেখে অনেকে গরীবের ঘোড়া রোগ হইছে বলে মন্তব্য করেছে।
চাচী মোবাইল পেয়ে খুশীর আতিশয্যে গাঁয়ের প্রায় প্রতিটি বাড়ী গিয়ে সেট দেখিয়ে বলেন "ইডা আমার রবি পাঠাইছে আর এই মুবালদে তারে ফোন দিতি কইছে"। বলে রাখা ভালো চাচী কিন্তু বকলম এবং খুব সাদাসিধা। রবিউলের ডাকনাম হলো রবি। গাঁয়ের মানুষজন তখনও মোবাইল এবং এর ব্যবহার সম্মন্ধে অজ্ঞ। তারা নেড়েচেড়ে দেখে আর অবাক হয়।
আমি তখন যশোর শহরে থাকি। বৃহস্পতিবারে বাড়ী যাই এবং রবিবারে ফিরি। সৌভাগ্যক্রমে আমি ওই একই মডেলের একটা মোবাইল সেট ব্যবহার করতাম জিপি কানেকশনে। নোকিয়া ৩৩১০ সেটটি আমার মতো স্বল্প আয়ের মানুষের কাছে স্বপ্ন হলেও ঘটনাচক্রে এক-তৃতীয়াংশ মূল্যে আমি সেকালে এই ঈর্ষনীয় সেটটির মালিকানা লাভ করি। কিছুদিন আগে চাচী একবার রবির সাথে কথা বলার জন্য আমার কাছে মোবাইল চেয়েছিলেন। সৌদিতে কথা বললে অনেক টাকা খরচ হয় বিধায় আমি এটা-সেটা বুঝিয়ে চাচীকে এড়াতে পেরেছিলাম। চাচী হয়তো কষ্ট পেয়ে রবিউলকে এই বিষয়টা জানিয়ে মোবাইল কিনে দিতে বলেছিলেন।
যাইহোক শুক্রবার ভোরে চাচী মোবাইল সেটটি নিয়ে আমার কাছে হাজির। ঘুম থেকে ডেকে উঠিয়ে বলেন "বাপু এই ফোনে সিম বরে দে তো, আমি রবির সাথে কথা কবো, গিরামের কেউ বরে দিতি পারলোনা", বলেই সযতনে আঁচলে বাঁধা একটি শিম (সবজি) খুলে আমার হাতে দিলেন।
-----------------------------
১৮/০১/২০২২

Post a Comment