যে কোনো সময় লেখা পোস্ট করা যায় । লিঙ্ক - https://webtostory.com/to-post-the-text/

মধুপর্ণী: সম্পাদনা সৌরভ লায়েক, কচিপাতা প্রকাশন, নিউ মার্কেট, পানাগড় বাজার, পশ্চিম বর্ধমান, মূল্য ১০০ টাকা।প্রচ্ছদ :রিষভ দাস।

মধুপর্ণী: সম্পাদনা সৌরভ লায়েক, কচিপাতা প্রকাশন, নিউ মার্কেট, পানাগড় বাজার, পশ্চিম বর্ধমান, মূল্য ১০০ টাকা।প্রচ্ছদ :রিষভ দাস।

 

সৌরভ লায়েক

কবিতাগুলিতে একটি প্রসন্নতার রেশ ছড়িয়ে যায় 

তৈমুর খান 


২৮ জন কবির দুটি করে কবিতা নিয়ে মোট ৫৬ টি কবিতার সংকলন 'মধুপর্ণী'(প্রথম প্রকাশ ফেব্রুয়ারি ২০২২) কবি সৌরভ লায়েকের সম্পাদনায় প্রকাশিত হয়েছে। খুব সুন্দর একটি সংকলন অবশ্যই যার বেশিরভাগ কবিই এই তরুণ প্রজন্মের। এমনও আছে অনেকের কবিতাই এই প্রথম পাঠ করার সুযোগ হয়েছে। সংকলনটি ভালোলাগার একমাত্র কারণ হল, প্রতিটি কবিতার নির্বাচন ও উপস্থাপন খুব সতর্কতার সঙ্গে করা হয়েছে। মেদবিহীন ঝরঝরে শব্দ শৃংখলের হার্দিক আবেদনে কবিতাগুলি মর্মকে বিদ্ধ করে। একটি প্রসন্নতার রেশ ছড়িয়ে যায় পাঠের মধ্য দিয়ে। এই প্রসঙ্গে মনে পড়ে লেবানিজ-আমেরিকান কবি, লেখক শিল্পী খলিল জিবরান(১৮৮৩-১৯৩১)-এর একটি উক্তি। 'Love One Another' নামে একটি লেখায় তিনি বলেছেন :


"Love one another, but make not a bond of love: Let it rather be a moving sea between the shores of your souls."


 অর্থাৎ একে অপরকে ভালোবাস, কিন্তু প্রেমের বন্ধন তৈরি করো না, বরং তোমার আত্মার তীরভূমির মধ্যেও একটি চলমান সমুদ্র হতে পারে। এই ক্ষুদ্র গ্রন্থটি সেই একটি চলমান প্রেমের সমুদ্র। শব্দে শব্দে তার ঢেউগুলি আছড়ে পড়েছে।


   সংকলনের কবিরা হলেন: মধুশ্রী দে, সোমনাথ মণ্ডল, অমিত লৌহ, প্রণবকুমার কুণ্ডু, বর্ণালী ভৌমিক, কবিতা সামন্ত, রানা জামান, চঞ্চল দুবে, কৌশিক চক্রবর্তী, মনোজিৎ মজুমদার, নটরাজ দে সরকার,  ঋচা, প্রশান্ত পরাশর, গৌতম দণ্ডপাট, রবীন বসু, পার্থ ব্যানার্জি, হামিদুল ইসলাম, আমিও মল্লিক, শম্পা সাহা, শান্তনু গুড়িয়া, শান্তময় গোস্বামী, অসিতকুমার পাল, অলোক নন্দন, বাসুদেব মণ্ডল, কাবেরী সরকার, সুরজিৎ সুলেখাপুত্র, দেবাশিস মুখোপাধ্যায় এবং তৈমুর খান। প্রায় সকলের কবিতাতেই প্রেমের সমুদ্র থেকে উঠে আসা তরঙ্গের জলকণাগুলি মনকে ভিজিয়ে দেয়। কাব্যের শেষ কবিতায় মধুশ্রী দে লিখেছেন:


"পাহাড়ী সুন্দরী বয়ে চলেছে আপন খেয়ালে,


 ছুটে চলেছে সে তার ভালোবাসার মানুষের কাছে।


 অপেক্ষাতে যে দূর সঙ্গমস্থলে—


 ভালোবাসা তার শরীর স্পর্শ চায়।


 সে এতটাই চঞ্চল—


 শুধু ভালোলাগার গভীরতায় ডুব দিতে নারাজ,


 চায় সম্পূর্ণ নিমজ্জন।


 তাতেই তার আনন্দ, তাতেই তার পূর্ণতা।"


 কবিতার নাম 'খরস্রোতা' অর্থাৎ প্রেমকে নদীর উৎসে সঞ্চারিত করে moving river এর চরিত্রে ধাবমান করেছেন যা  সমুদ্রেই সমর্পণের ব্যাপ্তি নিয়ে অগ্রসর হয়েছে। অর্থাৎ বাঁধন নয় make not a bond of love যা চিরন্তন গতিময়তার প্রাচুর্যে সম্মোহন জাগিয়ে চলে।


 এই কাব্যে ঋচা নামে এক কবিরও  কবিতা আছে। 'সর্বনাশ' নামের একটি কবিতায় তিনি লিখেছেন:


"দশ দিক থেকে ডেকেছে শরৎ,


 সেই বয়ঃসন্ধি থেকে, 


 কতবার ডুব দিয়েছি ধানের শিষের শিশির বিন্দুতে!"


 তখন কবিতার বাকি অংশের চিত্রকল্পে প্রবেশ না করেও দশদিগন্তের শরৎকে অনুধাবন করা যায়। ধানের শিষের শিশির বিন্দু যত ক্ষুদ্রই হোক— সেখানে ডুব মারাও যায়। দৃশ্যগুলি বিস্তৃত করে দেয়, তখন নিজের ক্ষুদ্রতাকেও সৌর আলোকের ঝিকিমিকিতে উজ্জ্বল করে তুলতে পারি।


    হামিদুল ইসলাম 'জীবন' নামের একটি কবিতায় লিখেছেন:


"লাল নীল রঙে জীবন সাজাই যেন বিমূর্ত ছবিঘর"


 এই একটি পংক্তিতেই তিনি প্রেমের মন্থনকে রূপকাশ্রিত স্তরবিন্যাস দান করেছেন। কেননা এই কবিতাতেই পূর্বপুরুষ, প্রাচীন সভ্যতা, জীবন-যুদ্ধের কথা আছে। যার মধ্য দিয়েই জীবনের প্রাপ্তি উপলব্ধির মাত্রায় খচিত হয়েছে। তেমনি কাবেরী সরকারের প্রেমের উপলব্ধিও "ধ্বনিময় অবিরাম সাগর মথিত সুধানিধি" হয়ে ফিরে এসেছে। দেবাশিস মুখোপাধ্যায় লিখেছেন: 


"গান আসছে পাহাড় থেকে


 আমাদের গাওয়া গান"


 আমরা এই পাহাড়কে যে নদীর উৎস ভাবি, সেই পাহাড়কেই গানের উৎসও ভাবি। অর্থাৎ নদী ও গান আমাদের হৃদয়কে রূপান্তরের মধ্য দিয়েই সচল করে রাখে। প্রেমের সময় সব সময় অনন্তকাল। এই প্রসঙ্গে রুমির একটা কথা মনে পড়ে যায়:


"Beauty and Love are as body and soul. Beauty is the mine, Love is the diamond."


 অর্থাৎ সৌন্দর্য এবং প্রেম শরীর এবং আত্মা হিসাবে হয়। সৌন্দর্য হল আমার, প্রেম হল হীরা। এই সৌন্দর্যের ঠিকানা এবং এই হীরার ঔজ্জ্বল্যই কাব্যখানিকে আদরনীয় করবে।


 মধুপর্ণী: সম্পাদনা সৌরভ লায়েক, কচিপাতা প্রকাশন, নিউ মার্কেট, পানাগড় বাজার, পশ্চিম বর্ধমান, মূল্য ১০০ টাকা।প্রচ্ছদ :রিষভ দাস।


 



ছবি : সৌরভ লায়েক। 


সৌরভ লায়েক

সৌরভ লায়েক




Post a Comment