যে কোনো সময় লেখা পোস্ট করা যায় । লিঙ্ক - https://webtostory.com/to-post-the-text/

মৌসুমী সরকার

কেলেঙ্কারি মৌসুমী সরকার, সমাজতত্ত্বে এম. এ. রবি দেখতে ছোট খাটো, পাতলা মতন, বয়স সাতাশ, ছয় মাস হলো বিয়ে হয়েছে, ওদের বড়ো মনিহারি দোকান আছে, বাবাই সব দে

 


কেলেঙ্কারি

মৌসুমী সরকার, সমাজতত্ত্বে এম. এ.

রবি দেখতে ছোট খাটো, পাতলা মতন, বয়স সাতাশ, ছয় মাস হলো বিয়ে হয়েছে, ওদের বড়ো মনিহারি দোকান আছে, বাবাই সব দেখাশোনা করেন, ও সাথে থাকে । ওর শ্বশুর বাড়ির অবস্থাও খারাপ নয়, কাপড়ের বড়ো ব্যবসা, ওর সব ভালো, আচার ব্যবহার ,, পড়াশোনাতে গ্রাজুয়েট,, কিন্তু ওর একটা মুদ্রা দোষ আছে, কথার মাঝে কেলেঙ্কারি বলা, যেমন শ্বশুর বাড়ি তে শাশুড়ি জিজ্ঞাসা করেছেন, “কেমন খেলে বাবা, ?

” উত্তরে শুনলেন ,” একেবারে কেলেঙ্কারি ,“ দোকানে লোক এসেছে, জিজ্ঞেস করছে ,.”. জিনিস ভালো হবে তো! “ তারাও উত্তর পেয়েছে “কেলেঙ্কারি! “ আসলে সে ভালো বলতে চেয়েছে জিনিস টা, কিন্তু সবাই বুঝলে তো! কত ক্রেতা চলে গেছে তার এই উত্তর পেয়ে, বাবা, মা বকেন, কিন্তু এই মুদ্রা দোষ আর তার যায় না । তার বৌ ও বলে, কিন্তু সে শুনলে তো! যেমন এক বিশাল কেলেঙ্কারি সত্যি সত্যি হয়ে গেল তার শালীর বিয়ে তে! রবির বাড়ি মফস্বলে, পায়রাডাঙ্গা তে, শ্বশুর বাড়িও তাই, তার ছোট শালী র হঠাৎ বিয়ে! ।

 শালী সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার, তার বর ও তাই,, একে অপরকে ছাড়া নাকি আর থাকতে পারছে না, তারা, এদিকে শ্বশুর মশাই রেগে আগুন, কারণ ছোট জামাই তাদের জাতের হয় নি, মহা মুশকিল! আসলে বাঙ্গালী সমাজে এখনো মুখে যতই প্রগতির বাণী শোনা যাক, ভেতরে কিন্তু অনেকেই অনেক কিছু এখনো মেনে নিতে পারে না! সে যাই হোক, অনেক বাধার পরে দুই পক্ষ একমত হয়েছে আজ ই বিয়ে! সকাল থেকে রবি ,তার বাবা মা, বৌ সহ এসেছে, সে বেশ দেখা শোনাও করছে, খাওয়া দাওয়া দুপুরে কেমন হলো বাবাজীবন ….. শ্বশুরের প্রশ্নের উত্তরে সে হেসে, বলেছে …” কেলেঙ্কারি একেবারে “, তার শ্বশুর প্রথমে অবাক হলেও পরে বুঝেছেন, সে আসলে খুব ভালো বলতে চাইছে ।

 গোল বাধলো সন্ধ্যা বেলা । বর এসে গেছে, সাথে বরযাত্রী, বিয়ে বসবে একটু পরেই, এককোনে সানাই বাজছে, মেয়ের মায়ের খুব শখ,, এখানে সবাই বসে পাত পেড়ে খাবে, একেবারে মাটির থালা, বাটি তে খাওয়া দাওয়া হবে,, ক্যাটারিং এর দেখনদারী ভদ্রতা মেয়ের বাড়ির কারো পছন্দ নয়! দুইবেলা ধরে রীতিমতো অনেক রাঁধুনি রান্না করছে, ঘর ভর্তি লোক, তার মধ্যে মামাবাবু হঠাৎ রবি কে জিজ্ঞেস করেছেন, “ ওদিকে রান্নার আয়োজন সব ঠিক আছেতো ? “, সে বলে ফেলেছে, “ কোনো চিন্তা, নেই, কেলেঙ্কারি একেবারে! 

“ কথাটা বর এর বাবার কানে গেছে, তিনি ভুরু কুঁচকে পাশের লোককে জিজ্ঞেস করছেন, “ কেলেঙ্কারি কিসের মশাই, ?”… বর এর পাশে দুজন ষণ্ডা মতন বন্ধু বসে ছিল, তারা উঠে এসেছে, এদিকে বর যাত্রী র একটি বাচ্চা গোবলা অনেক ক্ষণ ধরে খেয়াল করছিলো, কনে পক্ষের হোঁদল এর হাতে র আইস ক্রিম ওর চেয়ে অনেক বড়ো, ও সুযোগ বুজে হোঁদল কে ফেলে দিয়েছে পা দিয়ে, হোঁদলের হাতের আইস ক্রিম ছিট্কে গিয়ে সানাই ওলা দের মাথায় আর যন্ত্রে পড়েছে, 

ষণ্ডা বন্ধু রা রবি কে ধরেছে, “ কেলেঙ্কারির কথা কি বলছেন মশাই, ?” মুশকিল হয়েছে, রবির আবার তাড়াতাড়ি কথা বলতে গেলেই কেমন যেন আটকে যায়, সে বলছে, “ মানে, মানে, “….. ওদিকে বর পক্ষ র মধ্যে কথা চলছে, “ কি যেন একটা কেলেঙ্কারি আছে ভেতরে, বুঝে ছেন “, বড় পক্ষের সব জান্তা জেঠীমা, চেঁচিয়ে উঠেছেন, “ওমা সেকি কথা! 

“ কনে পক্ষের মামিমা বলার চেষ্টা করছেন ,” না, না, ওটা আসলে বড়ো জামাইবাবুর মুদ্রা দোষ ,” জেঠীমা বলছেন “, নানা কিছু আপনারা চেপে যাচ্ছেন যেন, “ বেশ একটা গন্ডগোলের পূর্বাভাস পাচ্ছে রবি, সে ভগবান কে ডাকছে, মনে মনে, হঠাৎ লোড শেডিং হয়েছে বিয়ে বাড়ি তে ।

 রবি দেখেছে এই সুযোগ! তাড়া হুড়ো তে বেরোতে গিয়ে, পাঞ্জাবি এক দিকে ছিঁড়ে গেছে, একটা হুড়ো হুড়ি পরে গেছে অন্ধকারে, জেনারেটার চলতে দেরি হচ্ছে, ইলেকট্রিক তার জড়িয়ে কে যেন পড়ে গেল মনে হলো, ভুঁড়ি ওয়ালা বর পক্ষের কেউ বোধ হয়, রবি অন্ধকারে পেছনের দরজা দিয়ে বেরোতেই, কে যেন চেল্লাচ্ছে “চোর চোর! “ বলে! রবির পেট গুড় গুড় করছে, কানে আসছে কুকুরের আওয়াজ,

 তাকে বেপাড়ার কুকুর তাড়া করেছে, তার বৌ কোন পার্লারে বসে আছে, মা বাবাই বা কোথায়, কত দিন মা বাবা বারণ করেছে ,তার এই মুদ্রা দোষ ছাড়তে বলেছে! রবি দৌড়োচ্ছে শ্বশুর বাড়ি ছেড়ে, আজ একটা কেলেঙ্কারি বোধহয় হয়েই গেল!




Post a Comment